slideshow 1 slideshow 2 slideshow 3

You are here

নববর্ষ, ভুভুজেলা ও হযরত জন লেনন!

গতকাইল নতুন বাঙালির নতুন নববর্ষ উদযাপন দেখিলাম! দেখিয়া-শুনিয়া ক্ষেপিয়া যাওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় আমার ছিলো না।

উৎসব-কাঙাল বাঙাল-বাঙালির কাঙালপনা দেখিয়া কে যেনো আমার কানের চারপাশে হাহাকার করতেছিলো : আহারে বাঙালি! আহারে নববর্ষ! আহারে ভুভুজেলা! একদম খাসা মাইনষের হাতে খাসা জিনিস পড়ছে! বাজাও বাঙালি, বাজাও। বাজাইয়া ফাডাঈয়ালাও (ফাটিয়ে ফেলো)।

ভুভুজেলার জ্বালায় কান ঝালাপালা; সর্বাঙ্গে জ্বালাপোড়া। মনের মধ্যে দেখি দাউ দাউ আগুন! আমি আমাকে চমকে দিয়ে বলি : অ্যাই! কী অইছে তোর? বোকা! এমন করিস ক্যান? হাসফাঁস করনের কী আছে? আইজ তো বাংলা নতুন বছর আইছে! আনন্দের দিন। খুশির দিন। বড় পবিত্র দিন।

দেখ ধনি-গরিব ধর্ম নির্বিশেষে কত কত মানুষ রাস্তায়! কত রঙ! কত ঢঙ! আর ওরা তো তোরই ভাই, তোরই বোন, তোরই মতো বাঙালি, তোরই মতো মানুষ! ভয় পাস্ পাস্, ডরাস ক্যান? ওরা তো ভয়ংকর ক্ষতিকর কিছু করতাছে না...জাস্ট ভুভুজেলা বাজাইতাছে!

তো শব্দমহাসমুদ্রে শব্দটর্নেডোর মইধ্যে পইড়া যখন হাবুডুবু খাইতেছিলাম তখন একজন পূর্বপরিচিত আজব জন-এর সঙ্গে মোলাকাত হয়ে গেলো। ওই জন বললো : ভুভুজেলার মতো বাঙালির হাতে আসা অপর ভুল মালটির নাম মোবাইল ফোন!

বাহ্। ঠিক বলেছে। ঠিক ধরেছে। আমার একটু একটু ভালো লাগতে শুরু করলো।

সমমনা পেলে শান্তি পায় স্বস্তি পায় মানুষের মন। তখন কথায় কথায় কত কথা যে উঠলো! মুহূর্তের তীব্রতম তিক্ততা যে মুহূর্তের তীক্ষ্ণতম-মধুরতার সন্ধান দেয় এবং মানুষ শেষপর্যন্ত মুহূর্তবাদি হতে পারলে যে অনেক অনেক বাদ বাদ দেয়া সম্ভব--এসব কীসব আলাপ করছিলাম আমরা।

এরকম আলাপের এক ফাঁকে জন রোমেল, আরেক জন জনের কথা বললেন। জন লেনন। আমাদের জন বললেন, ওই জন আসলে মানুষ নন, ছিলেন নবী। যিনি আসলে সত্যের জন্য পৃথিবীতে এসেছিলেন। এবং সত্য বলতে গিয়ে শহীদ হয়েছিলেন। জন শুরু করলেন জনের বিখ্যাত ইমাজিন গান। বললেন : এটা তো গান নয়। এটা সুরা। এটা নতুন অধর্মগ্রন্থের আয়াত। পবিত্র বাণী।

নিশ্চয়ই বিশ্বাসীদের জন্য রয়েছে পুরস্কার! শুনে দেখুন...বুঝে দেখুন...ভেবে দেখুন...হযরত জন লেনন কী বলেছেন আর কী বলতে বাকি রেখেছেন....

ভাবো তো!
জন লেনন
 
ভাবো তো স্বর্গ বলে কোনো কিছু নেই
এটা খুবই সহজ তুমি ভাবলেই
কোনো নরক নেই আমাদের নিচে
উপরে কেবল খোলা আকাশটাই যে
ভাবো : সব মানুষ বাঁচে শুধু আজকের জন্য!
 
ভাবো তো কোনো দেশ নেই!
এটাও কঠিন কিছু নয় মোটেই
নেই কোনো মারামারি কাড়াকাড়ি
এবং নেই ধর্ম, অহেতুক বাড়াবাড়ি!
ভাবো সব মানুষ শান্তিতে বাঁচে, জীবন অনন্য!
 
তুমি, তুমি বলতেই পারো
আমি স্বপ্নচারী, কিন্তু আমি তো একা নই
তুমিও সঙ্গী হবে একদিন সেই ভরসায় রই
এবং পৃথিবী হবে আমাদের মতো আমরা যেমন চাই!
 
ভাবো কোনো সম্পদ-সম্পত্তি নেই
আমি অবাক হবো তুমি যদি ভাবতে পারো
ক্ষুধা, লোভ-লালসার প্রয়োজন নেই কারো
সবাই সবার আপন সবাই ভাই ভাই
ভাবো: সবাই সমানভাবে পাচ্ছে পুরো পৃথিবীটাই!
 
তুমি, তুমি বলতেই পারো
আমি স্বপ্নচারী, কিন্তু আমি তো একা নই
তুমিও সঙ্গী হবে একদিন সেই ভরসায় রই
এবং পৃথিবী হবে আমাদের মতো আমরা যেমন চাই!
 
তর্জমা : মাহফুজ জুয়েল

12345
Total votes: 431

মন্তব্য

 তুমিও সঙ্গী হবে একদিন সেই ভরসায় রই! 

দারুণ। কেউ কি তর্জমাটা কণ্ঠে তুলে নিবেন?

বিপ্লব রহমান-র ছবি

সুন্দর মুক্তচিন্তার লেখার জন্য ধন্নবাদ। এই দিনটিতে বাঙালি যা ধরন করে আসলে মনে প্রানে তা সে ছাই। এই এক জাতি যাকে কেও বিধিনিসেদ এ বাধতে পারবে না। ধন্যবাদ। 

তুরন্ত। পাখির বাইচ্চার মতোন হইছে। তয় কোবতের চাইয়া আলাপ ভালো নাগবার নুইছিল।

আজাদ-র ছবি

তুরন্ত। পাখির বাইচ্চার মতোন হইছে।

হ..

শশাঙ্ক বরণ রায়-র ছবি

আপনেরে মিয়া খুন কইরা ফালামু... এইসব আলাপ কোনহানে লুকাইয়া রাখেন দিনে পর দিন...!

........................................................

আদিবাসী বাঙ্গালী যত প্রান্তজন
এসো মিলি, গড়ে তুলি সেতুবন্ধন

কি সুন্দর কবিতাটা ! আসলেই , অবতারই  বটে !

মন্তব্য