slideshow 1 slideshow 2 slideshow 3

You are here

ব্লগ

ফুটবলেশ্বর

এবারের বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালের ঠিক আগে ফুটবলেশ্বর স্বয়ং ব্রাজিল আর জার্মানিকে তাঁর দপ্তরে পৃথক পৃথকভাবে তলব করলেন। শুরুতেই ব্রাজিলের পালা। মেঘমন্দ্র কণ্ঠে বললেন,
-ব্রাজিল তুমি সেমিতে উঠছ, অভিনন্দন।
-ধন্যবাদ প্রভূ।
-আমি আর দেবতাগণ মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, সেমিফাইনালের চেহারাটাই পাল্টে দেব।
-প্রভূ, যদি একটু বিস্তারিত করতেন...
-সেমিফাইনালে আমি গোলখরা কাটিয়ে বান বইয়ে দেব।
এরপর দুই আঙুল তুলে ইঙ্গিত করে ঈষৎ হাসলেন।
-প্রভূ, মাত্র দুই?
-বৎস, তুমি মুর্খদের অন্তর্ভুক্ত হইও না। তোমার বোঝা উচিত ছিল, দুই বেলার বৃষ্টিতে যেমন খরা কাটে না তেমনি দুই গোলে বন্যা হয় না।

‘দৃষ্টির সীমানায় কবি স্যার শফিকুল ইসলাম’


‘উদভ্রান্ত যুগের শুদ্ধতম কবি শফিকুল ইসলাম’
–নিজাম ইসলাম।

তারুণ্য ও দ্রোহের প্রতীক কবি শফিকুল ইসলাম। তার কাব্যচর্চার বিষয়বস্তু প্রেম ও দ্রোহ। কবিতা রচনার পাশাপাশি তিনি অনেক গান ও রচনা করেছেন। তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত গীতিকার। তিনি ১০-ই ফেব্রুয়ারী সিলেট জেলায় জন্মগ্রহণ করেন।

চেরীফুল ও আন্দ্রে

 ১.

হয়তো এই শীতটা টিকে গেলে বুড়ো আন্দ্রে পরের বসন্তের চেরীফুল ফোটা দেখতে পেত। আন্দ্রে টিকতে চাইলো না এই মলিন ছোট শহরের মলিনতর হাসপাতালের চাদরে শুয়ে। আন্দ্রের হয়তো কেউ নেই, হয়ত কেউ আছে কিংবা ছিলো। বলিষ্ঠ তবে শীর্ন হাতে পাভ্‌লোভনা আস্তিন খামচে ধরে সে, ফিসফিস করে বলে ‘যন্ত্রনা, শেষ করে দে খুকী’; পাভ্‌লোভনার এই প্রথম নয় এরকম আবদার কেউ করেছিলো। বেনীতে তাকে খুকি লাগে বটে; তবে পাভ্‌লোভনা জানে সে মোটেও খুকি নয়। পাভ্‌লোভনা ভাবে কেন এই বুড়োর বেঁচে থাকার খায়েশ নেই। ঈশ্বর কী এঁর উপর থেকে দৃষ্টি সরিয়ে নিয়েছেন। আন্দ্রের চোখের মনি নিষ্প্রভ, মলিন শহরের মলিন আকাশের চেয়েও বিষণ্ণ।
 

ত্রয়ী গীতিকবিতা ।। শফিকুল ইসলাম

tear shed
গীতিকবিতা-(০১)

সেদিনের সেই তুমি কত বদলে গেছ
আমার পৃথিবী আজও তেমনি আছে,
যেমন দেখেছ॥

কোথায় সেই সুর, সেই গান
প্রাণে প্রাণে এত মান অভিমান,
মনে হয় যেন তুমি আজ
সবই ভুলে গেছ॥

রবীন্দ্রনাথ পরবর্তি বাংলা শব্দ শক্তি থাকলেও ভদ্রভাষার মর্যাদা পেলোনা চুদা ও অন্যান্য শব্দ(১)

 কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিন। কবিকে নিয়ে অনেকেই অনেক কিছু করবেন। অনেকেই লিখবেন। রবীন্দ্রনাথ আমার কাছে মনে হয়েছে আসলে বাংলা ভাষা। কারণ তিনিই বাংলাকে একটি ভাষা হিসাবে রূপ দিয়েছিলেন। তার  জন্ম দিনে এটা আমার একটা অনুভুতি। 

বসন্ত গোধুলীর সঙ্গীত (২)

পড়ন্ত বিকেলে সেই মাঠের হৃদয় ভেদ করা কাঁচা রাস্তা ধরে হাঁটতে শুরু করলাম। কেন হাঁটছিলাম? রাস্তার কাহিনীটা জানার জন্যে?
না বোধহয়। যদিও প্রতিটি রাস্তার থাকে একটি নিজস্ব কাহিনী। নিজস্ব গল্প। নিজস্ব ইতিহাস। নিজস্ব পুরাণ।
প্রান্তর টানছিল?
টানছিল। টানছিল সোনার প্রলেপ মোড়া নরম রোদ। বাড়ির পথে ডানা ঝাপটানো শালিকের ঝাঁক। আকাশের শূণ্যতা টানছিল।

জঙ্গীবাদ মুক্ত চক বাজার ও জঙ্গীবাদ মুক্ত ইমাম গঞ্জ

 

লেখক ও উদ্যোক্তা- হাসান মাহমুদ

প্রকাশক- আঃ হাকিম চাকলাদার

“লাইক”করতে কিচ্ছু লাগেনা,ওটা অলস বাক্যনবাবদের কাজ।কর্মদানবদের কর্ম শুরুই হয় “শেয়ার”করা থেকে।দেখছেন কর্মদানবদের ওই গর্বিত সাইনবোর্ড ? বাগেরহাট, শেরপুর, ইমামগঞ্জের পর এবার ঢাকার “জঙ্গীবাদমুক্ত চকবাজার” !! এগোচ্ছে-বিষাক্ত কালনাগের বিরুদ্ধে আমাদের আন্দোলন শান্তিপূর্ণ আন্দোলন এগোচ্ছে।

এভাবেই আমরা আমাদের মাতৃভূমি থেকে ওই বিষ উপড়ে ফেলব ইনশাআল্লাহ

 

http://www.sahos24.com/english/2014/05/03/531

আপনি আমন্ত্রিত

 

আপনি আমন্ত্রিত

chkdr02.files.wordpress.com/2014/04/you-are-invited.jpg

লেখক ও আয়োজক- হাসান মাহমুদ

প্রকাশক- আঃ হাকিম চাকলাদার

YOU ARE INVITED

 

উক্ত সভায় আপনিও যোগদান করে সভাকে সাফল্যমন্ডিত করুন।

আপনি আমন্ত্রিত

 

“সুলতা বনাম বনলতা সেন”

2-Sulota
“সুলতা বনাম বনলতা সেন”
একটি তুলনামূলক কাব্য বিশ্লেষণ
–ডঃ সৈয়দ এস আর কাশফি

টাইপ রাইটার

রোজকার মতোই কম্পিউটার টেবিলে বসে টাইপ রাইটারের মত খট খট আওয়াজে সামনের তারিখে কোর্টে পেশ করার জন্য একটা দলিল টাইপ করছিলো অবলাকান্ত দাসগুপ্ত । তার বাবু, মানে ব্যারিস্টার চৌধুরী নিজামুদ্দিন সাহেব কতবার তাকে বলেছে – ওটা টাইপ রাইটার নয় হে অবলাকান্ত, আধুনিক কম্পিউটারের কীবোর্ড । ওভাবে শক্তি প্রয়োগ করে টাইপ করলে দুদিনেই নষ্ট হয়ে যাবে; আর এতে করে যে এক ঘেয়ে শব্দ তৈরি হয় - বড়ই বিরক্তিকর । তাছাড়া নিজের বাড়ীর লাইব্রেরী কাম চেম্বারটাকেও কোর্ট পাড়ার সেই বিরক্তিকর টাইপ রাইটারদের প্রতিযোগিতামূলক বাজারের মতো মনে হয় নিজামুদ্দিন সাহেবের কাছে । যদিও ব্যাক্তিগত সহকারী কাম টাইপিস্ট অবলাকান্তের কাছে তিনি মুখ ফুট

আহসানুল্লাহর ছয় ছাত্রের মৃত্যু বনাম সাংবাদিকতা

সাংবাদিকতায় ভুল থাকে। ভুলতো প্রায় সবকিছুতেই থাকে, কিন্তু ভুলটা যদি চরম মাত্রায় হয়, তাহলে এতে বিস্ময় প্রকাশ করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। সাংবাদিক যা প্রকাশ করছে আর উপস্থিত ব্যক্তির সাথের ঘটনা এক হয় না। আহসানুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ জন ছাত্রের করুন মৃত্যু নিয়েও হয়েছে মিথ্যা সাংবাদিকতা। জাওয়াদ রহমান, যে কিনা সেই ৩৪ জনের দলে ছিলেন, তিনি তার ৬ জন বন্ধুর করুন মৃত্যু নিয়ে ফেসবুকে কিছু বলেছেন, পোস্টটি এরকম,

Pages