slideshow 1 slideshow 2 slideshow 3

You are here

তন্দ্রা চাকমা-এর ব্লগ

জ্বলি ন উদিম কিত্তায় ?

পনেমালা অজ পাড়া গাঁ মাটিরাঙ্গার বগাছড়ির মেয়ে । সে পাহাড়ি রাস্তার মুক্ত বাতাসে ঘুরে বেড়ায় । জুমের ফসল তোলা, কাঁকড়া, চিংড়ি মাছ ধরা, মাঝে মাঝে গরু চড়াতে চড়াতে আনমনা হয়ে আকাশ পাতাল ভাবা তার নিত্য দিনের অভ্যাস । এই ১৫ বছরে সে ক্লাস সিক্সে পড়ে । মাঝে মাঝে পাড়ার ক্লাবে পেপার পত্রিকাও পড়ে । আজকাল লোকাল পত্রিকা খুললে চোখে পড়ে ধর্ষন বলে কি ঘটে তার মত বয়সী মেয়েদের সাথে । সে একবার এক বড় দিদিকে জিজ্ঞেস করে ধর্ষন কি ? দিদির উত্তর তার গায়ে কাটা দেয় । প্রায় প্রতিদিনের কাজের ঝামেলায় আবার ভুলে যায় সে। তবে সে আজকাল সে আত্মরক্ষার জন্য দা সাথে রাখে বলা যায় না কখন কি বিপদ হয়।

ভয়

এই গ্রীষ্মের কোন এক সাপ্তাহিক ছুটির দিনে আমরা কয়েক কলিগ মিলে ঘুরতে গিয়েছিলাম চিয়াংমাই এর উঁচু স্থান ডয় ইনহানন এ । বেশ কয়দিন ধরে আলাপ হচ্ছিল কফি ব্রেক এর সময় সামনের ছুটিতে কোথাও যাওয়া যায় কিনা । অবশেষে পি প্রস্তাব দিল ডয় ইনহানন এ যেতে । ওখানে কারেন দের একটা গ্রাম আছে আর প্রাকৃতিক দৃশ্যও অনেক সুন্দর। তাই ওখানে দুইরাত দুইদিন থাকার পরিকল্পনা করা হল। আমরা শুক্রবার সন্ধ্যে নাগাদ পৌঁছে গেলাম। কাছেই একটা ন্যাশনাল পার্ক আছে সেটিকে বাঁদিকে রেখে ডানদিকে গেলেই সেই গ্রাম । গ্রামের নাম নং লম । গ্রামের সবাই বেশীরভাগ কারেন আদিবাসী । আমরা পৌঁছার পর রাত মনে হচ্ছে অনেক গভীর হয়েছে অথচ মাত্র ৭টা । আমা

স্মৃতিকথা

 সেইবার মনে নেই কোন  সালে  স্কুলের এক অনুষ্ঠানে গান গাইব বলে ঠিক করেছিলাম নাম ও দিয়েছিলাম । নাম দেওয়ার পর থেকে বিপত্তি আমার ক্লাসের ছেলে বন্ধুদের সাথে সব সময় এমনিতে ঝগড়া তো ছিল। তারা কিভাবে যেন যেনে গেল আমরা গান গাইব । এরপর থেকে সকাল বিকাল আমাদের পিছু ওরা লেগে থাকতো । তারা আমাদের নাম দিয়েছিল বাংলার বিখ্যাত গায়িকা। আমরা যে গানটি গাইব বলে ঠিক করেছিলাম সেটা ছিল বাংলার মাটি বাংলার জল বাংলার বায়ু বাংলার ফল । দুই একবার অনুশীলন করা ও হল । কিন্তু ওই বাদররা সকাল বিকাল কানের কাছে ঐ গানটা কানের কাছে হেঁড়ে গলায় এত গাইছিল যে আমর

সবিতার সুবিচারের অধিকার এবং কিছু কথা

আজ ২৫শে ফেব্রুয়ারী UN Women এর ঘোষণা মতে “অরেঞ্জ ডে”। প্রতি মাসের ২৫ তারিখ নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধের জন্য বিশ্ব জুড়ে এই ক্যাম্পেইনের কর্মসূচি পালিত হয়।

ব্যাখ্যার অতীত

 সেইবার কোরবানির ছুটিতে রাঙ্গামাটি গিয়েছিলাম সবাই মিলে । দাদা রাঙ্গামাটি শহর থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে একটা বাড়ি করেছে । পাড়ার নাম বিলেইছড়ি পাড়া । ছোটভাইয়ের পরিবার, দাদার পরিবার ও আমার পরিবার মিলে যাওয়া হলও । যে ঘটনার কথা বলতে বসেছি সেটা ঘটেছিল দ্বিতীয় দিন । সেইদিন সারাদিন আমরা হাজা ছড়া ছিলাম । ফিরতে প্রায় সন্ধ্যে । রাতে এক জনের বাসায় নিমন্ত্রণ । সবাই মিলে ঠিক হলও বোটে করে যাওয়া হবে । সবাই রেডি হইয়ে বোটে উঠা হোল । আকাশে আধখানা চাঁদ আলো দিচ্ছিল । মাঝে মাঝে সেই চাঁদ মেঘের আড়ালে হারিয়ে রাত কে বিষণ্ণ করে তুলছিল । যথারীতি দেড় ঘন্টা ধরে যাত্রা করে পৌঁছে গেলাম সেই বাসায় । খাওয়া দাওয়া সেরে ফিরতে ফ

তাইন্দং মাটিরাঙ্গা, সাবা এবং কিছু অনূভুতি:

 ঘটনাটা ঘটেছিল ৩রা আগষ্ট ২০১৩ তে । প্রথম জেনেছিলাম ফেসবুকের মাধ্যমে । কি ঘটেছিল?

কল্পনা কথা

 গত ১২ ই জুন কল্পনা চাকমার অন্তর্ধান দিবস পালিত হল । তিল তিল করে কিন্তু ১৭ বছর পার হল । আমরা বেশ কয়েক বার রাজপথে ও নেমে ছিলাম । ওই টুকুই ।

এর পর আদালত আবার পুনতদন্তের নির্দেশ দেয় । কিন্তু কালের কণ্ঠে ১১ই জুন প্রাকাশিত প্রতিবেদন বলে অন্য কথা তা লিঙ্ক সহকারে বিস্তারিত দিলাম ।

জুমঘর ও পূর্ণিমা

বাইরে ঝক ঝকে একটা মস্ত চাঁদ উঠেছে । জুমঘরে আজ এসে উঠেছে মেনলে ও সাইরু ।

পূজার স্মৃতি

আমি তখন মামা বাড়িতে বয়স আর কত হবে ৫/৬। আমার মামাবাড়ি ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলায়। অবশ্য আগরতলায় কেন মামাবাড়ি সেটা বলছি। আমার তিন মামা ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর চলে যান ।তারপর থেকে তারা সেখানে । ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আমরা মামা বাড়ি আগরতলা পরে সেখান থেকে কাঞ্চনপুরে। আমার মনে আছে আগরতলায় বড়মামা একটা বাড়ি করেদিয়েছিলেন ছনের ও বাঁশের সেইটা আমার রাজপ্রাসাদ মনে হতো । সব ভাই বোন একসাথে থেকেছি। কত মজার ছিল সেই দিন। কিছুদিন পর বড় মামা বললেন আমাদের কাঞ্চনপুর চলে যেতে হবে । আমরা একদিন খুব ভোরে পাহাড়ি আকা বাকা পথ পেরিয়ে পাহারি শহর কাঞ্চনপুর থাকতে আসলাম। শহর সে অর্থে

একটি হতে কি পারত না আর সব ঘটনার মত এটি

 সকালে ফুরফুরে মেজাজ নিয়ে ঘুম থেকে উঠেছিলাম। কি কুক্ষনেই না ফেসবুক টা খুলেছিলাম খুলেই দেখি রাঙ্গামাটিতে মারামারি চলছে । যিনি দিয়েছেন তাকে জিজ্ঞেস করলাম কি হইয়েছে । বিভিন্ন জনের আপডেট থেকে জানলাম আমার পরিচিত অনেক এ আহত । শুনেই মনটা খারাপ হল । সব চাইতে খারাপ হচ্ছে উপজেলা পরিষদে আজ উপজেলা চেয়ারম্যানদের মিটিং হচ্ছিল । সেখানে সেটেলাররা গিয়ে হামলা করে। দুঃখের ব্যাপার হচ্ছে এটি রাঙ্গামাটি সেনানিবাসের একদম কাছে অথচ তারাই তো সবচাইতে নিরাপদে থাকার কথা তাহলে এটি কেন হবে ?

নিষ্ঠুরতার পদচিহ্ন ঃ ক্ষনিকার গল্প (সত্যি ঘটনা অবলম্বনে ) মুনিয মঞ্জুর ( ইংরেজি মূল গল্প) তন্দ্রা চাকমা ( বাংলা অনুবাদ )

 আমার মনে আছে আমাকে একবার আমার নানু বলেছিল সামনে কি ঘটবে তার পূর্বাভাষ কখনও কখনও এই চিরচেনা প্রকৃতি বলে দেয় । আমি এইটা বিশ্বাস করিনি, আমি তখন ভেবেছি এইটা উনি আমাকে চুপ করার জন্য বলেছেন ।

শুধু কি স্বপ্নই থাকবে?

শুধু  কি স্বপ্নই থাকবে?

সেই সব দিনের কথা

সময়টা ১৯৭৭ সাল। আমি মাত্র ক্লাস ৮ এ পড়ি । বেড়াতে গিয়েছিলাম খাগড়াছড়িতে । তখন ও খাগড়াছড়ি জেলা হয়নি। তখন রাঙামাটি থেকে ট্রলার এ যেতে হয়। সেখান থেকে চাঁদের গাড়িতে মাথায় কয়েকটা আলু তুলে বিকাল নাগাদ পৌঁছান ছাড়া গতি নেই । সেইবার আমি মাঘ মাসে বুদ্ধ মেলা দেখতে গিয়েছিলাম । তখন ও সেটেলাররা ভাল করে আসেনি । এখনকার মত ভুই ফোড় সমধিকার আন্দোলন ও মাথা চারা দেয়নি। পাহাড়িদের মধ্যে ও এত বিভেদ ছিলনা। সেই সময় আমার সফর সঙ্গী ছিল আমার ছোটবোন তাতু যে ১৯৯৮ সালে মারা যায় । আমরা সেই সময় খাগড়াছড়িতে বাজারের কাছে পুরান বুদ্ধ মন্দিরের মাঠে শুরু হওা মেলায় যাত্রা দেখতে গিয়েছিলাম। যাত্রার নাম ‘ ফরিয়াদ’। সেই প্রথম যাত্রা দেখা

পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসীদের উৎসব বৈসাবী ও বৃহত্তর বাংলার বাংলা নববর্ষ

বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম বাংলাদেশ সরকারের বিধিবদ্ধ আইন দ্বারা স্বীকৃত একটি আদিবাসী অধ্যুষিত অঞ্চল। ঐতিহাসিক কারণে পার্বত্য চট্টগ্রামের শাসনব্যবস্থা বাংলাদেশের প্রশাসনিক কাঠামো হতে ব্যতিক্রমধর্মী। ব্যতিক্রমধর্মী শাসনব্যবস্থার মাঝে ১১টি আদিবাসী জাতি তাদের সাংস্কৃতিক ও নৃতাত্ত্বিক বৈচিত্র্য নিয়ে বাস করে।

এক দুপুরে আমি একা।পর্ব-২

আমার স্বপ্ন ভঙ্গ হওয়ার পর আমি ভিতরে আসলাম।কিন্তু কৌতূহল গেল না কে সেই ছেলে যে আমার পরী হওয়া দেখতে এসেছে। আমি আবার বারান্দায় ফিরে এলুম। তার লাজুক মুখ চোখে পরল ।কিন্তু সেই মুখে হাসি আর কৌতূহল দেখলাম। পরে আমি একটু বন্ধু সুলভ হাসি দিতেই সে হাসল জিজ্ঞেস করল ‘এই তোমার নাম কি? আমি বললাম তন্দ্রা। বলল বাহ শুনলে স্বপ্ন দেখতে ইচ্ছে করে।আমি হাসলাম বললাম কেন? ঐ যে ঘুমের সাথে সম্পর্ক। পরে আবার জিজ্ঞেস করল আমি এখানে থাকি কিনা?

Pages