slideshow 1 slideshow 2 slideshow 3

You are here

রিসাত কামাল-এর ব্লগ

জন্মান্তরের ঘুম

উৎসর্গঃ জীবনানন্দ দাশ

 

বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও একচোখা রাজনীতির বিষ

১। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদী নীতির শুরুকালীন হিন-মুসলমানের অর্থনৈতিক যে শ্রেণি বিভেদ তৈরি হল,তাতে ধর্ম/সাম্প্রদায়িকতা অর্থনৈতিক ভেদ তৈরি করে।শ্রেণি বিভেদ রূপান্তরিত করা হল সাম্প্রদায়িক বিভেদে। যার ফলশ্রুতিতে আমরা পেলাম ভারত-পাকিস্তান(ধর্মের ভিত্তিতে রাষ্ট্র, কিন্তু তা ধর্মের আদর্শ কে ভিত্তি করে হয় নাই,অর্থনৈতিক প্রশ্ন ঘিরে হয়েছে,সুতরাং ধর্মের লেবাস বাদ দিয়ে ভারত-পাকিস্তান কে যখন ভাবব তখন অর্থনীতি,রাজনীতি ঔপনিবেশিক শাসন- এই প্রসংগ গুলো গুরুত্বপূর্ণ, আরো সহজ ভাবে ধরে নিলে একেকটি অঞ্চল শাসন করতে দেওয়া হল হিন্দু-মুসলমানদেররঃ এতে শ্রেণি বিভেদ দুই সম্প্রদায় বাদ দিয়ে শুধু নিজের সম্প্রদায়ে হ

স্বর্গ ও নরকের মাঝামাঝি একটা সিনেমা

রিকশা থেকে নামতেই রিকশাওয়ালা বলে উঠলঃ “বাজান, আমারে ৫ টা টাকা বাড়াই দ্যাও। আমি একটা কোরান শরীফ কিনব। মানত করসিলাম, আমার বৌয়ের অসুখ ভাল হইয়া যাবার জন্য”। আমি দিলাম না। প্রথমে ভাবছিলাম, সে সত্যি কথা বলছেতো? নাকি ধর্ম দিয়ে ব্লেকমেইল করার এটা নতুন পন্থা? আর এমনিতেই মনটা খুব অস্থির হয়ে আছে সকাল থেকে। বার বার মাথায় ফিরে ফিরে আসছিল জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার বিতরণির ঘটনা গুলি। পুরো ঘটনাতে আমার কোন প্রশ্ন বা আক্ষেপ নেই।আক্ষেপ শুধু শিরিষ ভাইয়ের ভূমিকা নিয়ে। ব্যাপারটা এরকম ছিল:

ফরহাদ মজহার এর 'ভাবান্দোলন' ও কানাগলি

আপনার ‘ভাবান্দোলন” বইতে নিজেই স্বীকার করে নেন যে আওয়ামী বাঙালি জাতীয়তাবাদের বিপরীতে যে বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদ হাজির হয়েছে তা শুধু মাত্র ইসলামকে পুঁজি করে ক্ষমতার রাজনীতিতে ভোট হাসিল করার জন্য।এই রাজনীতি শুধুমাত্র নিজেকে মুসলমান হিসেবেই দাবি করে আসার প্রণপণ লড়াই করে যা শেষমেষ ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতার জন্ম দিতে থাকে...আওয়ামীরা জন্ম দেয় ভাষাগত সাম্প্রদায়িকতা আর বিএনপি/জামাত ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতা...

'মুসল্লী' দের বাংলাদেশ(!!), ওয়ার অন টেরর, শাহবাগ

পাক-ভারত বিভাগের আগে উচ্চ-মধ্যবিত্ত শ্রেণী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাকে পৃষ্ঠপোষকতা(!!) করত যাতে অন্য সম্প্রদায়ের প্রতিযোগীতা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়। আর পাক-ভারত বিভাগের পর সাপ্রদায়িকতা কে উসকে দেওয়া হত নিজেদের সম্প্রদায়ভুক্ত নিম্নবিত্ত লোকদের শ্রেণী চেতনা রোধ করার জন্য। আর ২০১৩ বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতা কে উসকে দেওয়া হয় শুধু অর্থনৈতিক কারণে নয়- বরং জাতীয় পরিচয়ের সংকটের জায়গা থেকে মুসলিম সাম্প্রদায়িকতা পৃষ্ঠপোষকতাকারী রাজনৈতিক দল গুলো এক ধরণের racist আধিপত্য কায়েম করতে চায়;যা বাকি সব জাতি/ধর্ম/বর্ণ কে নিম্ন বর্গীয় বিবেচনা করে। এবং তাদের intellectual গুরুরা নানা projection এর মাধ্যমে

বাঙালির ‘আর্কিটাইপ’-বাঙালির পরিচয়ঃ শাহবাগ ২০১৩

(ফ্রয়েডকে মানব মনের অন্ধকার ঘরের প্রথম নাবিক বলা হয়। তার psychoanalysis প্রথম ভাবতে শিখিয়েছে, কিভাবে এক টা মানুষের চিন্তা, চিন্তা করে। এর আগে ভাবা হত মানুষ কি চিন্তা করে?? আর ফ্রয়েড পথ দেখিয়েছেন কিভাবে এই চিন্তা কাজ করে তার বিস্তারিত। ফ্রয়েড এর যে তিন টি মূল ভাগ –id, ego, super-ego; তার সমস্তই ব্যক্তি কেন্দ্রিক। সামষ্টিক বা বৃহৎ কিছু মানুষের চিন্তা শক্তিকে ফ্রয়েড তার এই ব্যক্তিকেন্দ্রিক অবচেতন কেই বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন।

বাংলার জটিল ভৌগলিক হিসাব নিকাশ ও সংস্কৃতি

রিচার্ড এম. ঈটন, ভিলেম ভ্যান শিন্ডেল প্রমুখ বিশ্বখ্যাত ইতিহাসবিদদের দুটি অতি গুরুত্বপূর্ণ বই যথাক্রমে The rise of islam and the Bengal Frontier  ও  A History of Bangladesh। বই দুটি’র প্রায় দুই তৃতীয়াংশ আমার পড়া হয়েছে। দুই লেখক ই একটি বিষয়ে বিশেষ আলোকপাত করেছেন- এই বর্তমান বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থান। ঈটন এই ভৌগলিক অবস্থাকে আখ্যায়িত করেছেন ‘ফ্রন্টিয়ার’ বলে ও শিণ্ডেল বলেছেন ‘ডেল্টা’।

‘কনফিউজড’,তাই ক্ষমাপ্রার্থী

...মাকড়সার মরণ অথবা আমার

নিষিদ্ধ

নিষিদ্ধ বাণী কোন সূড়সুড়ী
নয়-বরং নর্দমায়
আটকে থাকা ময়লার
শুধু ছুটে চলা;-

এও এক অন্তহীন স্রোতের ধর্ম
বজায় রাখতো;
যদি তুমি আমার
ঠোঁটে চুমু খেতে,
আমার শার্ট ছিড়ে ফেলতে।

তখন আমি;
মুক্তি পেতাম এই পোশাক থেকে-

জানো,
এই পোশাক-
আমার চোখ খূলতে দেয়না
আমাকে কথা বলতে দেয়না
আমাকে শ্বাস নিতে দেয়না...

তাইতো প্রতি রাতে
আমাকে ভর করে,
ক্ষুদিরাম-প্রীতিলতা-সূর্যসেনেরা;

আমাকে ভর করে
আমার মানুষটি,
যে দিনের আলোয় ভয় পায়-

আয়না ট্র্যাজেডি

আয়না, তোমার পরতে পরতে
কত গল্প! কত বস্তু!!
কত ইতিহাস!!!

এত কিছু থাকিতে আমি তোমারে দেখি
বাজারে যাইবার
জন্য…-
তার জিহ্‌বায় আমার
সোয়াদ কেমন হইবে,
তা বুঝিবার জন্য!!!