slideshow 1 slideshow 2 slideshow 3

You are here

হিলিয়াম এইচ ই-এর ব্লগ

ইতিহাসের কাব্য : ফিলিস্তিন, হামাস, ইসরায়েল

ইসরায়েল কর্তৃক ফিলিস্তিন দখলের ইতিহাস

ভূমধ্যসাগরের পূর্বে ১০,৪২৯ বর্গমাইলব্যাপী প্যালেস্টাইন দেশটি ছিল অটোমান খেলাফতের অধীন, প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যারা ছিল বৃটেন বিরোধী জোটে৷ তখন যুদ্ধ জয়ে প্যালেস্টিনিয়ানদের সহযোগিতা পাওয়ার আশায় ১৯১৭ সালে বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লর্ড বেলফোর যুদ্ধে জয়ী হলে এই ভূমিতে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হবে বলে আশ্বাস দেন৷ যা ইতিহাসে বেলফোর ঘোষণা হিসেবে পরিচিত৷ যেহেতু আরবরা ছিল ইহুদিদের তুলনায় কয়েকগুণ বেশি, সেহেতু ঘোষণাটি তাদের অনুকূল বলেই তারা ধরে নেয়৷ কিন্তু এর মাঝে যে মহা ধোকাটি লুকিয়ে ছিল তা তারা বুঝতে পারেনি৷ বৃটিশ শাসনের শুরু থেকে৷ প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় বৃটেনের প্রয়োজনে দুর্লভ বোমা তৈরির উপকরণ কৃত্রিম ফসফরাস তৈরি করতে সক্ষম হন ইহুদি বিজ্ঞানী ড. হেইস বাইজম্যান৷ ফলে আনন্দিত বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী জানতে চাইলেন কি ধরনের পুরস্কার তিনি চান৷ উত্তর ছিল অর্থ নয় আমার স্বজাতির জন্য এক টুকরো ভূমি আর তা হবে প্যালেস্টাইন৷ ফলে প্যালেস্টাইন ভূখণ্ডটি ইহুদিদের হাতে তুলে দেয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি নেয় বৃটেন৷ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ জয়ের পর বৃটেন স্বাধীনতা দেয়ার অঙ্গীকারে ১৯১৮ সাল থেকে ৩০ বছর দেশটিকে নিজেদের অধীন রাখে৷ মূলত এই সময়টিই প্যালেস্টাইনকে আরব শূন্য করার জন্য ভালোভাবে কাজে লাগায় ইহুদি বলয় দ্বারা প্রভাবিত ইঙ্গ-মার্কিন শক্তি৷

আহসানুল্লাহর ছয় ছাত্রের মৃত্যু বনাম সাংবাদিকতা

সাংবাদিকতায় ভুল থাকে। ভুলতো প্রায় সবকিছুতেই থাকে, কিন্তু ভুলটা যদি চরম মাত্রায় হয়, তাহলে এতে বিস্ময় প্রকাশ করা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। সাংবাদিক যা প্রকাশ করছে আর উপস্থিত ব্যক্তির সাথের ঘটনা এক হয় না। আহসানুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ জন ছাত্রের করুন মৃত্যু নিয়েও হয়েছে মিথ্যা সাংবাদিকতা। জাওয়াদ রহমান, যে কিনা সেই ৩৪ জনের দলে ছিলেন, তিনি তার ৬ জন বন্ধুর করুন মৃত্যু নিয়ে ফেসবুকে কিছু বলেছেন, পোস্টটি এরকম,

ICC: International Cricket Council আর Indian Cricket Council দুটোইকি এক হবে?

বর্তমানে ক্রিকেট খুবই জনপ্রিয় খেলা। প্রায় সব দেশেই ক্রিকেট চলে। তো, এতদিন আইসিসির টপ টেন সদস্যরা বেশ সুখে শান্তিতে দিন কাটাইতেসিল। কিন্তু হঠাৎ অঘটন ঘটে গেল ভারতের দাবীর জন্য। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান শ্রীনিবাসন যে দাবী গুলো উত্থাপন করেছেন তা অনেকটা এইরকম :

গল্পঃ চশমা পড়া মেয়েটি এবং ……

বাসের জন্য অনেকক্ষণ অপেক্ষা করছিলাম। কিন্তু এই অবরোধ এ বাস কোথায় পাব? এই রাজনৈতিক অস্থিরতায় আম জনতার যেমন পেটে লাত্থি, ঠিক তেমনই আমার পায়ে কুড়াল। জায়গাটা খুবই নির্জন। আশেপাশে বাড়িঘর তো দূরের কথা সামান্য চায়ের দোকানটাও নাই। তাহলে ত একটা সিগারেটের উপর আক্রোশ টা নিভাতে পারতাম। এই এক যাত্রী ছাউনি আর সামনে একটা পিচঢালা রাস্তা। ব্যস। আর কিছু নাই। চারপাশ প্রায় মরুভূমি। কিছুক্ষণ পর লক্ষ্য করলাম একটা মেয়ে এদিকেই আসছে। আমিও মনে মনে খুশি হলাম। যাক বাবা, কাওকে তো পেলাম। আর এদিকে দাড়িয়ে থাকতে থাকতে আমার পা ব্যথা করা শুরু করেছে। ভাবলাম একটু বসা যাক। কিন্তু মেয়েটা এসেই ২ টা সিটের ১ টাতে বসে পড়লো।

গল্পঃ অপু আর অপুর হৈম

--- তো পোলাপান, আমরা ক্যালকুলাসের "লা হসপিটাল রুলস"টা কি বুঝলাম?
দীর্ঘ ২ ঘন্টা ক্লাস নেওয়ার পর সুব্রত দা স্টুডেন্টদের দিকে একটু স্বস্তিতে তাকালেন।
--- অপু, তোর মনোযোগ কই? বাইরে কি?
--- কিছু না দাদা, এমনিতেই তাকিয়ে ছিলাম।
বোকার মতো একটা হাসি দিল অপু।
--- বুঝলি? দিন দুপুরে পরী নামে না। রাতে ট্রাই করিস।
সাথে সাথেই ক্লাসে একটা হাসির রোল বয়ে গেল। হাসিটা বোধহয় একটু বেশিই হল। কারণ, অপু ছিল গ্রুপ এডমিন। একটু চেনা মুখই বটে।